1. sylhetbbc24@gmail.com : admin : Web Developer
  2. marufmunna29@gmail.com : admin1 : maruf khan munna
  3. faisalyounus1990@gmail.com : Abu Faisal Mohammad Younus : Abu Faisal Mohammad Younus
শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৯:১৪ অপরাহ্ন

হবিগঞ্জে টিউমার অপারেশনে নারীর জরায়ু কাটলেন চিকিৎসক

  • সিলেট বিবিসি ২৪ ডট কম : আগস্ট, ২৫, ২০২০, ১১:৩৩ am

  • প্রতিনিধি,হবিগঞ্জ:: হবিগঞ্জে টিউমার অপারেশন করতে গিয়ে এক নারীর জরায়ু কেটে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে আরশেদ আলী নামে এক চিকিৎসকের বিরুদ্ধে। বর্তমানে ওই নারী জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে রয়েছেন।

    সোমবার (২৪ আগস্ট) রাতে হবিগঞ্জ শহরের টাউন হল রোডে অবস্থিত ‘সেন্ট্রাল হসপিটাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্ট্রারে’ এ ঘটনা ঘটে। পরে রোগীর স্বজনরা ডায়াগনস্টিক সেন্ট্রারে এসে বিক্ষোভ করেন।

    খবর পেয়ে সদর থানার এসআই আব্দুর রহিমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করেন। এ ঘটনায় রোগীর স্বজনরা ‘সেন্ট্রাল হসপিটাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার’ ও ডা. আরশেদ আলীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রশাসনের নিকট দাবি জানিয়েছে।

    জানা যায়, বানিয়াচং উপজেলার মক্রমপুর গ্রামের নোয়াজিশ মিয়ার স্ত্রী খদর চাঁন জরায়ু টিউমারে আক্রান্ত হন। গত ১ সপ্তাহ আগে তিনি হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি হন। রোববার সকালে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের গাইনি বিভাগের কনসালটেন্ট ডা. আরশেদ আলী তাকে অপারেশনের জন্য শহরের টাউন হল রোডে অবস্থিত ‘সেন্ট্রাল হসপিটাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে’ অপারেশনের পরামর্শ দেন। তার পরামর্শে ওই নারীকে সেন্ট্রাল হসপিটালে ভর্তি করেন তার স্বজনরা। বিকেলের দিকে ডা. আরশেদ আলী সেন্ট্রাল হসপিটালে ওই নারীর জরায়ু টিউমারের অপারেশন করেন। কিন্তু অপারেশন শেষে ওই নারীকে ওয়ার্ডে স্থানান্তর করার কয়েক ঘন্টা অতিবাহিত হলেও জরায়ুতে লাগানো ক্যাথেটার দিয়ে প্রসাব আসা বন্ধ থাকে। রাত প্রায় ১টা পর্যন্ত অপেক্ষা করেও এক ফোঁটা প্রসাবও বের হয়নি। এতে ওই নারীর পেট ফুলে উঠে। একপর্যায় রাত ১টার দিকে ডা. আরশেদ আলীকে খবর দিলে তিনি হাসপাতালে গিয়ে ওই নারীর চিকিৎসা করেন। কিন্তু এরপরও বিষয়টি সমাধান না হওয়ায় ভোরে তাকে সিলেট প্রেরণ করা হয়।

    এদিকে, মুমূর্ষু অবস্থায় ওই নারীকে সিলেট পাঠালেও রোগীর সঙ্গে দেয়া ছাড়পত্রে সীল দেয়নি সেন্ট্রাল হসপিটাল কর্তৃপক্ষ। যার ফলে সিলেটের কোনো হাসপাতাল ওই রোগীকে ভর্তি নেয়নি। এতে রোগীর অবস্থা আরো শঙ্কটাপন্ন হয়ে উঠে। সারাদিন সিলেটের বিভিন্ন হাসপাতালে ঘুরেও রোগীকে ভর্তি করতে না পারায় সোমবার রাত ৯টার দিকে আবারো রোগী নিয়ে হবিগঞ্জ ফিরে আসেন স্বজনরা। পরে তারা সেন্ট্রাল হসপিটালে এসে বিক্ষোভ করলে হবিগঞ্জ সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করেন। একপর্যায়ে ছাড়পত্রে সীল নিয়ে আবারো তারা রোগীকে নিয়ে সিলেট চলে যান।

    এ ব্যাপারে রোগীর ভাগ্নে মহিবুল ইসলাম শাহীন বলেন, ডাক্তার আরশেদ আলী ও সেন্ট্রাল হসপিটাল কর্তৃপক্ষের ভুলের কারণে মৃত্যুর মুখে পড়েছে আমাদের রোগী। ডা. আরশেদ আলী অপারেশনের সময় রোগীর জরায়ু কেটে দিয়েছেন। যার ফলে সে এখন মৃত্যু পথযাত্রী।

    এ ব্যাপারে সেন্ট্রাল হসপিটাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ম্যানেজার অসীম দেব বলেন, এই রোগীকে রিলিজ দেয়ার সময় আমি ছিলাম না। তবে এখন আমরা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে ওই নারীকে সিলেট নিয়ে যাচ্ছি এবং রোগীর সুস্থ্যতায় যা করার প্রয়োজন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ করবে।

    তবে চিকিৎসক আরশেদ আলী বলছেন, নারীর জরায়ু কেটে ফেলা হয়নি। আর আমরা এ নারীর চিকিৎসা একটি এএনজিও মাধ্যমে করেছি। এখানে টাকা-পয়সার কোন হিসেব আসেনি। আর অপারেশনের পর নারীর অবস্থা একটু খারাপ হওয়ায় আমরা তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেটে প্রেরণ করা হয়েছে।

    সিলেটবিবিসি/২৫ আগস্ট ২০/রাকিব

    facebook comments












    © All rights reserved © 2020 sylhetbbc24.com
    পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ