1. sylhetbbc24@gmail.com : admin : Web Developer
  2. marufmunna29@gmail.com : admin1 : maruf khan munna
  3. faisalyounus1990@gmail.com : Abu Faisal Mohammad Younus : Abu Faisal Mohammad Younus
মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ০১:৪৩ পূর্বাহ্ন

এমসি কলেজে ধর্ষণ: দুই মাসেও আসেনি ডিএনএ প্রতিবেদন, আটকে আছে চার্জশীট

  • সিলেট বিবিসি ২৪ ডট কম : নভেম্বর, ২৫, ২০২০, ১২:৪৬ pm

  • সিলেটের মুরারিচাঁদ (এমসি) কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে রেখে এক নারীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনার দুই মাসেও অভিযোগপত্র দিতে পারেনি পুলিশ।

    দেশজুড়ে আলোচিত ওই ঘটনার ডিএনএ প্রতিবেদন না পাওয়ায় অভিযোগপত্র দেয়া যায়নি বলে পুলিশ দাবি করছে।

    পুলিশের কর্মকর্তারা বলছেন, তদন্ত কার্যক্রম প্রায় শেষ। ডিএনএ প্রতিবেদন পাওয়ার কিছুদিনের মধ্যেই অভিযোগপত্র দেয়া হবে।

    এদিকে, ধর্ষণের ঘটনায় হাইকোর্ট, শিক্ষা মন্ত্রণালয়, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ও এমসি কলেজ কর্তৃপক্ষের চার তদন্ত কমিটিই প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত কোনো প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়নি।

    দুই মাস পরও ধর্ষণের শিকার নারী মানসিক ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে পারেননি। তিনি এখনও মানসিকভাবে বিধ্বস্ত বলে জানিয়েছেন তার পরিবারের সদস্যরা।

    গত ২৫ সেপ্টেম্বর রাতে সিলেটের বালুচর এলাকার এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হন ওই গৃহবধূ। করোনাভাইরাস মহামারির কারণে বন্ধ থাকা ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে রেখে তাকে ধর্ষণ করা হয়।

    ওই রাতেই ওই নারীর স্বামী ছয় জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাতনামা কয়েক জনকে আসামি করে নগরীর শাহপরান থানায় মামলা করেন।

    ঘটনার পর পালিয়ে গেলেও তিন দিনের মধ্যে সিলেটের বিভিন্ন স্থান থেকে এজাহারভুক্ত আসামি সাইফুর রহমান, তারেকুল ইসলাম তারেক, মাহবুবুর রহমান রনি, অর্জুন লস্কর, রবিউল ইসলাম ও মাহফুজুর রহমান মাসুম এবং সন্দেহভাজন আসামি মিসবাউর রহমান রাজন ও আইনুদ্দিনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

    গ্রেফতারের পর সবাইকে পাঁচ দিন করে রিমান্ডে পায় পুলিশ। রিমান্ড শেষে সবাই আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। কোনো পদে না থাকলেও গ্রেফতার হওয়া সবাই ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত বলে স্থানীয় ও কলেজ সূত্রে জানা যায়।

    মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শাহপরান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য জানান, তাদের তদন্ত প্রায় শেষ পর্যায়ে। তবে এখনও ডিএনএ প্রতিবেদন পাননি। প্রতিবেদনটি হাতে পেলেই অভিযোগপত্র দেয়া হবে।

    সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (গণমাধ্যম) বিএম আশরাফ উল্যাহ তাহের বলেন, ‘ডিএনএ প্রতিবেদন আদালতে জমা দেয়া হয়েছে বলে মঙ্গলবার জানতে পেরেছি। আশা করছি শিগগিরই আমাদের হাতে পৌঁছাবে। প্রতিবেদনটি পেলে দ্রুততম সময়ে অভিযোগপত্র দেয়া হবে।’

    কবে নাগাদ অভিযোগপত্র দেয়া হতে পারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এ ব্যাপারে নির্দিষ্ট কোনো তারিখ বলা যাবে না। তবে আমরা দ্রুততম সময়ে দেব।’

    তিনি জানান, মামলাটি অত্যন্ত স্পর্শকাতর। উপর মহল থেকেও এটি তদারকি করা হচ্ছে। এ কারণে সময়ক্ষেপণের সুযোগ নেই।

    এদিকে ধর্ষণের ওই ঘটনার রাতে এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে আসামি সাইফুর রহমানের দখলে থাকা কক্ষ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করে পুলিশ। ওই ঘটনায় পুলিশ অস্ত্র আইনে মামলা করে। সেই মামলার অভিযোগপত্রও এখনও দেয়া হয়নি।

    সিলেটবিবিসি/রাকিব/ডেস্ক/নভেম্বর ২৫,২০২০

    facebook comments












    © All rights reserved © 2020 sylhetbbc24.com
    পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ