1. sylhetbbc24@gmail.com : admin : Web Developer
  2. marufmunna29@gmail.com : admin1 : maruf khan munna
  3. faisalyounus1990@gmail.com : Abu Faisal Mohammad Younus : Abu Faisal Mohammad Younus
বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৫:৩৮ অপরাহ্ন

আজমিরীগঞ্জে খাদ্যবান্ধব কর্মসুচীর হতদরিদ্রের কার্ড প্রদানে টাকা নেয়ার অভিযোগ ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে

  • সিলেট বিবিসি ২৪ ডট কম : অক্টোবর, ২২, ২০২০, ৬:৪৪ am

  • রুজেল আহম্মেদ, আজমিরীগঞ্জ :: হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জে হতদরিদ্রের মাঝে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির কার্ড বিতরণে টাকা নেয়ার অভিযোগ উঠেছে এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে। এমনকি তালিকায় হত দরিদ্রের নাম না দিয়ে এলাকার সচ্ছল ব্যক্তিসহ প্রভাবশালী ব্যক্তিদের সন্তানের নামেও কার্ড বরাদ্ধ দিয়েছেন ওই ইউপি সদস্য। এ বিষয়ে মুখ খুলতে শুরু করেছেন ভুক্তভোগী এলাকাবাসী।

    অভিযুক্ত ব্যক্তি উপজেলার ২ নং বদলপুর ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের সদস্য (মেম্বার) জগৎজ্যোতি দাস।

    জানা যায়, উপজেলার বদলপুর ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য জগৎজ্যোতি দাস সরকারের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচিতে হতদরিদ্রের জন্য ১০৬টি কার্ড বরাদ্ধ পান। ওই কার্ড বিতরণে মাথা পিছু তিনি ১ হাজার টাকা করে উৎকোচ গ্রহণ করেন।

    এলাকাবাসী আরো জানান, সরকারের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির এই কার্ড প্রকৃত ভুক্তভোগীদের নামে বরাদ্ধ না দিয়ে টাকার বিনিময়ে এলাকার সচ্ছল ব্যবসায়ী ও প্রভাবশালীদের সন্তানদের বরাদ্ধ দিয়েছেন। যাচাই করে সচ্ছল ও প্রভাবশালীদের নাম তালিকায় থাকার বিষয়ে সত্যতা পাওয়া যায়।

    এ বিষয়ে ৪ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা অর্জুন সূত্রধরের ছেলে নিখিল সূত্রধর জানান- বিগত তালিকায় তার নাম থাকলেও নতুুুন তালিকায় নেই তার নাম। এ বিষয়ে ডিলারের সাথে যোগাযোগ করে নিখিল জানতে পারেন তার নাম কেটে নতুন নাম দিয়েছেন ইউপি সদস্য জগৎজ্যোতি দাস।

    একই ওয়ার্ডের বাসিন্দা হিরণ রায়ের ছেলে দিনমজুর পিন্টু রায় এবং চম্পক আনন্দ চক্রবর্তীর ছেলে হরিভক্ত চক্রবর্তী জানান- ওএমএসের তালিকায় নাম ওঠাতে ইউপি সদস্য জগৎজ্যোতি দাসকে ১ হাজার টাকা করে দিতে হয়েছে তাদের। ১ হাজার টাকা দেয়ার পরও কার্ডের জন্য ডিলার অমল চন্দ্র দাসকে দিতে হয়েছে আরো ১শ টাকা করে।

    কার্ড প্রতি ১শ টাকা করে নেয়ার বিষয়ে ওএসএমের ডিলার অমল চন্দ্র দাসের মুটোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি তা অস্বীকার করেন।

    একইভাবে টাকা নেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেন ইউপি সদস্য জগৎজ্যোতি দাস। তবে ডিলার কার্ড প্রতি ১শ টাকা করে নিয়েছেন এটা তিনি জানেন বলে স্বীকার করেন। এছাড়া সচ্ছল ব্যক্তি ও প্রভাবশালীদের সন্তানের নাম তালিকায় যুুুুক্ত করার বিষয়টি স্বীকার করে তিনি বলেন- ‘আমি কয়েকটা নাম দিয়েছি কারণ বিভিন্ন সময়ে উনারা আমার উপকার করেছেন।’

    এ বিষয়ে বদলপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সুসেনজিৎ চৌধুরী বলেন, ‘ইউপির ৯২টি কার্ড বিশেষভাবে পরিবর্তন করা হয়েছে। তার মধ্যে কিছু কার্ডধারী মৃত্যুবরণ করেছেন। যারা সচ্ছল তাদের কার্ডগুলো পরিবর্তন করে অসচ্ছলদের দেওয়া কথা। তার ভিতরে এক বা দুটি ব্যতিক্রম যদি হয়ে থাকে এ বিষয়ে আমাদের জানা নেই।’

    এ ব্যপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মতিউর রহমান খাঁন বলেন, ‘এ রকম কোন অভিযোগ আমি পাইনি। অভিযোগ আসলে তদন্তসাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করব।’

    সিলেটবিবিসি/রাকিব/ডেস্ক/অক্টোবর ২২,২০২০

    facebook comments












    © All rights reserved © 2020 sylhetbbc24.com
    পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ